শনিবার     ২০শে অক্টোবর, ২০১৮    ৫ই কার্তিক, ১৪২৫      বিকাল ৫:৫৫

বাংলাদেশের সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করার পক্ষে মত দিয়েছেন গণমাধ্যমের প্রতিনিধিরা।

আজ (বুধবার) সকাল ১০টায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের সম্মেলন কক্ষে সংলাপে তারা এ মত দেন।

সাংবিধানিকভাবে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) যে ক্ষমতা আছে সেটির প্রয়োগ করার ওপরও গুরুত্ব দিয়েছেন গণমাধ্যম প্রতিনিধিরা। এছাড়া, রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা অর্জন, প্রয়োজনে সেনা মোতায়েন, না ভোটের বিধান এবং সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার প্রতিও জোর দেওয়া হয়েছে।

সাংবাদিকদের সঙ্গে সংলাপ শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে আজ দুপুরে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করতে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করাসহ নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) তার নিজস্ব শক্তি ও জনবলের সঠিক ব্যবহার, প্রয়োজনে সেনা মোতায়েন এবং না ভোট পুনঃপ্রবর্তনের সুপারিশ করেছেন বিভিন্ন পত্রিকার জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকেরা।

‘নির্বাচনে সামরিক বাহিনী মোতায়েনের প্রয়োজন নেই’

তবে, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সামরিক বাহিনী মোতায়েনের প্রয়োজন নেই বলে মত দিয়েছেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান। আওয়ামী লীগের টিকেটে একাধিকবার জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী শফিকুর রহমান বলেছেন, নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে আহ্বান করলে পুলিশ-র‍্যাব সাইডলাইনে চলে যাবে। তখন অবস্থা তেমন ভালো থাকবে না। ২০০১ সালের নির্বাচনে সেনাবাহিনী ছিল। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা সংলাপে সভাপতিত্ব করছেন। এ ছাড়া চার নির্বাচন কমিশনার উপস্থিত ছিলেন। আজকের সংলাপে অংশ নেওয়ার জন্য ৩৪ জন গণমাধ্যমকর্মী ও সাংবাদিক নেতাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তার মধ্যে ২২ জন অংশ নিয়েছেন ।

আজকের সংলাপে উপস্থিত ছিলেন – সম্পাদক পরিষদের সভাপতি ও সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ার, ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম, ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেস সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, নিউজ টুডে সম্পাদক রিয়াজউদ্দিন আহমেদ, মানবজমিনের প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান  নিউএজ সম্পাদক নূরুল কবীর, জনকণ্ঠের নির্বাহী সম্পাদক স্বদেশ রায়, জাতীয় প্রেসক্লাব ও বিএফইউজে নেতৃবৃন্দ এবং কয়েকজ বিশিষ্ট কলামিস্ট।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার বিভিন্ন টেলিভিশন, রেডিও ও অনলাইন গণমাধ্যমের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সংলাপ অনুষ্ঠিত হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ঘোষিত রোড ম্যাপ অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গত ৩১ জুলাই থেকে সংলাপ শুরু করেছে। প্রথম দফায় সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা সংলাপে অংশ নিয়ে নির্বাচনে নিয়মিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংজ্ঞায় অন্তর্ভুক্ত করা, নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দেওয়া, “না” ভোট প্রবর্তন করাসহ বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরেছিলেন।

Comments

No comments found!

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Login Registration
Remember me
Lost your Password?
Login Registration
Registration confirmation will be emailed to you.
Password Reset Registration
Login